ভিজিটিং কার্ড সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নিন

Visiting Card

ভিজিটিং কার্ড সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নিন, Visiting Card

ভিজিটিং কার্ড ব্যবহারের প্রদান উদ্দেশ্য হল, প্রতিষ্ঠান বা নিজের কর্মের পরিচিতি বিস্তার করা। যেমনঃ মনে করুন, আপনার একটি দোকান আছে। তাহলে এটা আপনার প্রতিষ্ঠান। আবার, আপনি একজন উকিল, তাহলে এটা আপনার পেশা। প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তি, পেশা ভেদে ডিজাইনে পরিবর্তণ আসতে পারে। আপনি যখন ব্যক্তিগত ভিজিটিং কার্ড তৈরি করবেন, সে ক্ষেত্রে এক ধরনের ডিজাইন হবে। আবার যখন আপনার ব্যবসায়িক কাজের জন্য ভিজিটিং কার্ড তৈরি করবেন, সে ক্ষেত্রে অন্য রকম ডিজাইন হবে। তাই সর্ব প্রথম ঠিক করতে হবে আপনার অথবা আপনার ক্লাইন্টের ভিজিটিং কার্ড তৈরি করার উদ্দেশ্য কি?

ভিজিটিং কার্ডের সাইজঃ

ভিজিটিং কার্ড ডিজাইনের পরবর্তী ধাপ কার্ডের সাইজ তথা আকার নির্ধারণ। ভিজিটিং কার্ড তৈরি করার ক্ষেত্রে এই ধাপটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ভিজিটিং কার্ডের সাইজ বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ধরনের স্ট্যান্ডার্ড রয়েছে। যেমনঃ

কানাডা এবং ইউএসএ: 3.5 × 2 ইঞ্চি

ইরান: 3.346 × 1.889 ইঞ্চি

ইউরোপ: 3.346 × 2.165 ইঞ্চি

জাপান: 3.582 × 2.165 ইঞ্চি

হংকং, চীন, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর: 3.543 × 2.125 ইঞ্চি

অস্ট্রেলিয়া, সুইডেন, ভিয়েতনাম, নরওয়ে, তাইওয়ান, ভারত, কলম্বিয়া, ডেনমার্ক, নিউজিল্যান্ড: 3.54 × 2.1655 ইঞ্চি

অন্যান্য দেশ: 3.543 × 1.968 ইঞ্চি

সাইজের পাশাপাশি কার্ড ডিজাইনের সময় সর্বদা তিনটি বিষয় বিবেচনা করতে হবে। যথা:

ভিজিটিং-কার্ড-ডিজাইন-টেপ্লেটঃ

ব্লীড এরিয়া: কার্ডের বাইরের অংশ হিসাবে এটি থাকবে। এটা প্রিন্ট করার সময় বাদ যাবে।

ট্রিম লাইন: নাম দেখেই বুঝতে পারছেন আসলে এই অংশ থেকেই কার্ড কাটা হবে।

সেফটি লাইন: এটা নিরাপদ লাইন অর্থাৎ এই লাইনের বাইরে লোগো বা টেক্সট নেয়া যাবে না।

সাধারণত ভিজিটিং কার্ডের ব্লীড এরিয়া 0.125 ইঞ্চি (3 মিমি) হবে এবং ট্রিম লাইন থেকে সেফটি লাইন পর্যন্ত 0.125 ইঞ্চি (3 মিমি) ফাঁকা থাকবে।

ভিজিটিং কার্ডের শেপঃ

শেপ শব্দটি শুনে আশ্চর্য হবার কিছু নয়। আমরা সাধারণত আয়তক্ষেত্রের শেপে ভিজিটিং কার্ড দেখে অভ্যস্ত। কিন্তু আয়তক্ষেত্র ছাড়াও বৃত্ত, ত্রিভুজ কিংবা অন্যান্য আরও অনেক শেপে ভিজিটিং কার্ড ডিজাইন করা যায়।

যেমন- যারা মুরুগ ব্যবসায়ী তারা মুরুগের আকৃতির, ডিমের ব্যবসায়ী ডিমের আকৃতির, ইত্যাদি ধরন অনুযায়ী ভিজিটিং কার্ডের শেপ পরিবর্তণ হয়ে থাকে।

ভিজিটিং কার্ডের কালারঃ

ডিজাইনের ক্ষেত্রে কালার তথা রঙ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। ভিজিটিং কার্ডে 'কালার' - ভিজিটিং কার্ডের ডিজাইনকে আকর্ষণীয় করার পাশাপাশি কার্যকরী করে তোলে।

কালার মানুষের মস্তিষ্ককে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে, আর তাই কালারকে মার্কেটিংয়ের গুরুত্বপূর্ণ টুল হিসেবে ধরা হয়। একটি ভিজিটিং কার্ডে ২ থেকে ৩ টার বেশী কালার ব্যবহার না করাই উত্তম। কালার নির্বাচনের ক্ষেত্রে অবশ্যই অনেকগুলো বিষয় মাথায় রাখতে হবে। যেমনঃ

সাদা: আনন্দ, নিরাপত্তা, আন্তরিকতা, বিশুদ্ধতা বা পবিত্রতা প্রকাশ করে।
কাল: ক্ষমতা, রহস্য, দামী এবং ব্যয়বহুলতা প্রকাশ করে।
হলুদ: উৎসাহ, কর্মদক্ষতা ও উদ্যমী প্রকাশ করে।
সবুজ: প্রকৃতি, শক্তি ও সজীবতা বোঝায়।
গোলাপি: মেয়েলী, শিশুসুলভ, সরলতা, ভালবাসা প্রকাশ করে।

লোগো ডিজাইনঃ

যদি আপনার ভিজিটিং কার্ড আপনার প্রতিষ্ঠান কিংবা কোম্পানির জন্য হয়ে থাকে, তবে অবশ্যই সেখানে লোগো থাকাটা আবশ্যক। লোগো আপনার কোম্পানির আইডেন্টিটি এবং প্রচারের পাশাপাশি ভিজিটিং কার্ডের ডিজাইন এ নতুন মাত্রা যোগ করে। শুধুমাত্র লোগো আর প্রয়োজনীয় টেক্সট যোগ করে আকর্ষণীয় এবং মনোমুগ্ধকর ভিজিটিং কার্ড ডিজাইন করা সম্ভব।

প্রয়োজনীয় টেক্সটঃ

প্রয়োজনীয় টেক্সট বলতে মূলত আপনার ভিজিটিং কার্ডে যেসব লেখা অবশ্যই লিখতে হয় সে গুলোকে বুঝায়। ভিজিটিং কার্ডে যেসব বিষয়ে লেখা থাকা বাধ্যতামূলক। যথা-

নাম, কোম্পানির নাম, পেশা, ফোন নম্বর, ঠিকানা, ইমেল, ওয়েবসাইট, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি।

টাইপোগ্রাফিঃ

আপনার প্রয়োজনীয় টেক্সটকে সুন্দর মত সাজানোকে টাইপোগ্রাফি বলা হয়। ফন্ট ব্যবহারের ক্ষেত্রে চেষ্টা করবেন গুগোল ফন্টস ব্যবহার করতে। এছাড়া ফন্টের কালার, সাইজ, লেটার স্পেস সবকিছুই টাইপোগ্রাফির অন্তর্ভুক্ত।

মিনিমাল ডিজাইনঃ

ডিজাইনকে যথাসম্ভব মিনিমাল তথা সাদাসিধে রাখা প্রয়োজন। অনেকেই ডিজাইনকে খুব বেশি গর্জিয়াস করতে গিয়ে ভিজিটিং কার্ডের প্রফেশনালিজমের রূপ নষ্ট করে দেয়। তাই ডিজাইনকে সিম্পল রাখার চেষ্টা করুন।

এই ছিল ভিজিটিং কার্ড ও এর ডিজাইনের উপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা। আর সবার শেষে একটি কথা, প্রচুর পরিমাণে প্রফেশনাল ভিজিটিং কার্ড ডিজাইনারদের ডিজাইন দেখুন এবং ডিজাইনের ক্ষেত্রে নতুন ট্রেন্ডগুলো ফলো করুন।


No comments

0

Visiting Card

ভিজিটিং কার্ড সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নিন, Visiting Card

ভিজিটিং কার্ড ব্যবহারের প্রদান উদ্দেশ্য হল, প্রতিষ্ঠান বা নিজের কর্মের পরিচিতি বিস্তার করা। যেমনঃ মনে করুন, আপনার একটি দোকান আছে। তাহলে এটা আপনার প্রতিষ্ঠান। আবার, আপনি একজন উকিল, তাহলে এটা আপনার পেশা। প্রতিষ্ঠান বা ব্যক্তি, পেশা ভেদে ডিজাইনে পরিবর্তণ আসতে পারে। আপনি যখন ব্যক্তিগত ভিজিটিং কার্ড তৈরি করবেন, সে ক্ষেত্রে এক ধরনের ডিজাইন হবে। আবার যখন আপনার ব্যবসায়িক কাজের জন্য ভিজিটিং কার্ড তৈরি করবেন, সে ক্ষেত্রে অন্য রকম ডিজাইন হবে। তাই সর্ব প্রথম ঠিক করতে হবে আপনার অথবা আপনার ক্লাইন্টের ভিজিটিং কার্ড তৈরি করার উদ্দেশ্য কি?

ভিজিটিং কার্ডের সাইজঃ

ভিজিটিং কার্ড ডিজাইনের পরবর্তী ধাপ কার্ডের সাইজ তথা আকার নির্ধারণ। ভিজিটিং কার্ড তৈরি করার ক্ষেত্রে এই ধাপটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। ভিজিটিং কার্ডের সাইজ বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন ধরনের স্ট্যান্ডার্ড রয়েছে। যেমনঃ

কানাডা এবং ইউএসএ: 3.5 × 2 ইঞ্চি

ইরান: 3.346 × 1.889 ইঞ্চি

ইউরোপ: 3.346 × 2.165 ইঞ্চি

জাপান: 3.582 × 2.165 ইঞ্চি

হংকং, চীন, মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর: 3.543 × 2.125 ইঞ্চি

অস্ট্রেলিয়া, সুইডেন, ভিয়েতনাম, নরওয়ে, তাইওয়ান, ভারত, কলম্বিয়া, ডেনমার্ক, নিউজিল্যান্ড: 3.54 × 2.1655 ইঞ্চি

অন্যান্য দেশ: 3.543 × 1.968 ইঞ্চি

সাইজের পাশাপাশি কার্ড ডিজাইনের সময় সর্বদা তিনটি বিষয় বিবেচনা করতে হবে। যথা:

ভিজিটিং-কার্ড-ডিজাইন-টেপ্লেটঃ

ব্লীড এরিয়া: কার্ডের বাইরের অংশ হিসাবে এটি থাকবে। এটা প্রিন্ট করার সময় বাদ যাবে।

ট্রিম লাইন: নাম দেখেই বুঝতে পারছেন আসলে এই অংশ থেকেই কার্ড কাটা হবে।

সেফটি লাইন: এটা নিরাপদ লাইন অর্থাৎ এই লাইনের বাইরে লোগো বা টেক্সট নেয়া যাবে না।

সাধারণত ভিজিটিং কার্ডের ব্লীড এরিয়া 0.125 ইঞ্চি (3 মিমি) হবে এবং ট্রিম লাইন থেকে সেফটি লাইন পর্যন্ত 0.125 ইঞ্চি (3 মিমি) ফাঁকা থাকবে।

ভিজিটিং কার্ডের শেপঃ

শেপ শব্দটি শুনে আশ্চর্য হবার কিছু নয়। আমরা সাধারণত আয়তক্ষেত্রের শেপে ভিজিটিং কার্ড দেখে অভ্যস্ত। কিন্তু আয়তক্ষেত্র ছাড়াও বৃত্ত, ত্রিভুজ কিংবা অন্যান্য আরও অনেক শেপে ভিজিটিং কার্ড ডিজাইন করা যায়।

যেমন- যারা মুরুগ ব্যবসায়ী তারা মুরুগের আকৃতির, ডিমের ব্যবসায়ী ডিমের আকৃতির, ইত্যাদি ধরন অনুযায়ী ভিজিটিং কার্ডের শেপ পরিবর্তণ হয়ে থাকে।

ভিজিটিং কার্ডের কালারঃ

ডিজাইনের ক্ষেত্রে কালার তথা রঙ অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ উপাদান। ভিজিটিং কার্ডে 'কালার' - ভিজিটিং কার্ডের ডিজাইনকে আকর্ষণীয় করার পাশাপাশি কার্যকরী করে তোলে।

কালার মানুষের মস্তিষ্ককে নিয়ন্ত্রণ করতে পারে, আর তাই কালারকে মার্কেটিংয়ের গুরুত্বপূর্ণ টুল হিসেবে ধরা হয়। একটি ভিজিটিং কার্ডে ২ থেকে ৩ টার বেশী কালার ব্যবহার না করাই উত্তম। কালার নির্বাচনের ক্ষেত্রে অবশ্যই অনেকগুলো বিষয় মাথায় রাখতে হবে। যেমনঃ

সাদা: আনন্দ, নিরাপত্তা, আন্তরিকতা, বিশুদ্ধতা বা পবিত্রতা প্রকাশ করে।
কাল: ক্ষমতা, রহস্য, দামী এবং ব্যয়বহুলতা প্রকাশ করে।
হলুদ: উৎসাহ, কর্মদক্ষতা ও উদ্যমী প্রকাশ করে।
সবুজ: প্রকৃতি, শক্তি ও সজীবতা বোঝায়।
গোলাপি: মেয়েলী, শিশুসুলভ, সরলতা, ভালবাসা প্রকাশ করে।

লোগো ডিজাইনঃ

যদি আপনার ভিজিটিং কার্ড আপনার প্রতিষ্ঠান কিংবা কোম্পানির জন্য হয়ে থাকে, তবে অবশ্যই সেখানে লোগো থাকাটা আবশ্যক। লোগো আপনার কোম্পানির আইডেন্টিটি এবং প্রচারের পাশাপাশি ভিজিটিং কার্ডের ডিজাইন এ নতুন মাত্রা যোগ করে। শুধুমাত্র লোগো আর প্রয়োজনীয় টেক্সট যোগ করে আকর্ষণীয় এবং মনোমুগ্ধকর ভিজিটিং কার্ড ডিজাইন করা সম্ভব।

প্রয়োজনীয় টেক্সটঃ

প্রয়োজনীয় টেক্সট বলতে মূলত আপনার ভিজিটিং কার্ডে যেসব লেখা অবশ্যই লিখতে হয় সে গুলোকে বুঝায়। ভিজিটিং কার্ডে যেসব বিষয়ে লেখা থাকা বাধ্যতামূলক। যথা-

নাম, কোম্পানির নাম, পেশা, ফোন নম্বর, ঠিকানা, ইমেল, ওয়েবসাইট, সোশ্যাল মিডিয়া ইত্যাদি।

টাইপোগ্রাফিঃ

আপনার প্রয়োজনীয় টেক্সটকে সুন্দর মত সাজানোকে টাইপোগ্রাফি বলা হয়। ফন্ট ব্যবহারের ক্ষেত্রে চেষ্টা করবেন গুগোল ফন্টস ব্যবহার করতে। এছাড়া ফন্টের কালার, সাইজ, লেটার স্পেস সবকিছুই টাইপোগ্রাফির অন্তর্ভুক্ত।

মিনিমাল ডিজাইনঃ

ডিজাইনকে যথাসম্ভব মিনিমাল তথা সাদাসিধে রাখা প্রয়োজন। অনেকেই ডিজাইনকে খুব বেশি গর্জিয়াস করতে গিয়ে ভিজিটিং কার্ডের প্রফেশনালিজমের রূপ নষ্ট করে দেয়। তাই ডিজাইনকে সিম্পল রাখার চেষ্টা করুন।

এই ছিল ভিজিটিং কার্ড ও এর ডিজাইনের উপর সংক্ষিপ্ত আলোচনা। আর সবার শেষে একটি কথা, প্রচুর পরিমাণে প্রফেশনাল ভিজিটিং কার্ড ডিজাইনারদের ডিজাইন দেখুন এবং ডিজাইনের ক্ষেত্রে নতুন ট্রেন্ডগুলো ফলো করুন।


ভিজিটিং কার্ড সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নিন
Item Reviewed: ভিজিটিং কার্ড সম্পর্কে কিছু তথ্য জেনে নিন 9 out of 10 based on 10 ratings. 9 user reviews.

Post a Comment

Dear readers, after reading the Content please ask for advice and to provide constructive feedback Please Write Relevant Comment with Polite Language.Your comments inspired me to continue blogging. Your opinion much more valuable to me. Thank you.

Powered by Blogger.