যে কারণে আপনার গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট হারাতে পারেন

Google Adsense বা সোনার হরিণ

যে কারণে আপনার গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট হারাতে পারেন, অ্যাডসেন্স একাউন্ট রক্ষার্থে কি করবেন, কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট নিরাপদ রাখবেন, গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহারের শর্তাবলী, যে কারণে ব্যান হয়ে যেতে পারে আপনার অ্যাডসেন্স একাউন্ট

গুগল অ্যাডসেন্স একটি সোনার হরিণের নাম। যা সবাই পায় না, আবার অনেকেই পাওয়ার পর রক্ষা করতে পারে না। জেনে নিন - কি কি ভূলের কারনে আপনি অ্যাডসেন্স মনিটাইজেশন হারাতে পারেনঃ

নিজের বিজ্ঞাপনে ক্লিকঃ অনেকেই মাঝে মাঝে নিজের বিজ্ঞাপনে ক্লিক করেন। ভূল করেও এই কাজ আর করতে যাবেন না। কারণ নিজের অ্যাড নিজে ক্লিক করলে গুগলের নিয়ম অনুযায়ী ইনভ্যালিড এক্টিভিটি হিসেবে মার্ক করবে এর ফলে আপনি আপনার সাধের মনিটাইজেশন হারাতে পারেন।

আইপি পরিবর্তন করে বিজ্ঞাপনে ক্লিকঃ আপনি যদি মনে করেন যে আপনি ভিপিএন বা প্রক্সি ব্যাবহার করে অন্য দেশের আইপি নিয়ে আপনার নিজের চ্যানেলের ভিডিও দেখবেন ও নিজের এড ক্লিক করবেন সেই চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে দিন। কারণ গুগলকে ফাঁকি দেয়া এত সহজ না। আইপি পরিবর্তন করে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করলে গুগল সেটাকে ইনভ্যালিড ক্লিক বা ইনভ্যালিড এক্টিভিটি হিসেবে মার্ক করবে এবং আপনার মনিটাইজেশন ডিজেবল করে দেবে।

কপি-পেস্টঃ নিজ থেকে যতটুকু পারেন, ততটুকুই লিখুন, কপি-পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন। বিশেষ কোন কারণে, অন্যের পোস্ট থেকে আইডিয়া নিতে পারেন।

নিজের বন্ধুবান্ধবকে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করতে বলাঃ অনেক নতুন ব্লগার ফেইসবুক বা যেকোন সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের বন্ধুবান্ধবকে ভিডিও লিংক পাঠিয়ে ভিউ করতে বলেন এবং বিজ্ঞাপনে ক্লিক করতে বলেন, এই কাজ করা থেকে বিরত থাকুন।

নিষিদ্ধ কন্টেন্টঃ ব্লগে কিছু নিষিদ্ধ টপিক আছে যেমন হেটফুল কন্টেন্ট, হারম্ফুল কন্টেন্ট, হ্যারেসমেন্ট, ভায়োলেন্ট কন্টেন্ট, এডাল্ট কন্টেন্ট ইত্যাদি, এই সব বিষয় নিয়ে পোস্ট বা ভিডিও আপলোড করা থেকে বিরত থাকবেন কারণ, এই ধরনের কন্টেন্ট আপনার মনিটাইজেশন হারানোর কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

মিসলিডিং কন্টেন্ট ও ট্যাগঃ অনেকে পোস্ট লিখেন এক বিষয়ে আর টাইটেল দেন আরেক বিষয়ের। অনেকে পোস্টের সাথে মিল রেখে ট্যাগ ব্যবহার করেন না। আবার অনেকেই পোস্টের সাথে মিল রেখে ছবি ব্যবহার করেন না। এগুলোকে মিসলিডিং বলা হয়। এই কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে, না হলে গুগল মিসলিডিং ডাটা হিসেবে মার্ক করে আপনার মনিটাইজেশন ডিজেবল করে দিতে পারে।

একাধিক একাউন্ট ব্যবহারঃ আপনি যদি নতুন হোন, তাহলে একের বেশি অ্যাডসেন্স একাউন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। না হলে আপনার একটি একাউন্টের সমস্যার কারণে অন্য একাউন্টগুলো ব্যান হয়ে যেতে পারে। তাছাড়া গুগল যেহেতু আপনাকে ২০০ সাইটে কোড ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে, এখানে অধিক একাউন্ট কেন-ই বা প্রয়োজন?

নিচের পোস্টগুলো দেখতে পারেনঃ

গুগল অ্যাডসেন্স কি এবং কিভাবে কাজ করে?

কিভাবে এক মাসের মধ্যে গুগল এডসেন্স পেতে পারেন

Google Adsense আবেদন সফল হয়নি! কি করবেন?

ব্লগে ভিজিটর বাড়ানোর ২০টিরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ টিপস

অনলাইন আয়ের ৩ টি জনপ্রিয় মাধ্যম

No comments

0

Google Adsense বা সোনার হরিণ

যে কারণে আপনার গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট হারাতে পারেন, অ্যাডসেন্স একাউন্ট রক্ষার্থে কি করবেন, কিভাবে গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট নিরাপদ রাখবেন, গুগল অ্যাডসেন্স ব্যবহারের শর্তাবলী, যে কারণে ব্যান হয়ে যেতে পারে আপনার অ্যাডসেন্স একাউন্ট

গুগল অ্যাডসেন্স একটি সোনার হরিণের নাম। যা সবাই পায় না, আবার অনেকেই পাওয়ার পর রক্ষা করতে পারে না। জেনে নিন - কি কি ভূলের কারনে আপনি অ্যাডসেন্স মনিটাইজেশন হারাতে পারেনঃ

নিজের বিজ্ঞাপনে ক্লিকঃ অনেকেই মাঝে মাঝে নিজের বিজ্ঞাপনে ক্লিক করেন। ভূল করেও এই কাজ আর করতে যাবেন না। কারণ নিজের অ্যাড নিজে ক্লিক করলে গুগলের নিয়ম অনুযায়ী ইনভ্যালিড এক্টিভিটি হিসেবে মার্ক করবে এর ফলে আপনি আপনার সাধের মনিটাইজেশন হারাতে পারেন।

আইপি পরিবর্তন করে বিজ্ঞাপনে ক্লিকঃ আপনি যদি মনে করেন যে আপনি ভিপিএন বা প্রক্সি ব্যাবহার করে অন্য দেশের আইপি নিয়ে আপনার নিজের চ্যানেলের ভিডিও দেখবেন ও নিজের এড ক্লিক করবেন সেই চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে দিন। কারণ গুগলকে ফাঁকি দেয়া এত সহজ না। আইপি পরিবর্তন করে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করলে গুগল সেটাকে ইনভ্যালিড ক্লিক বা ইনভ্যালিড এক্টিভিটি হিসেবে মার্ক করবে এবং আপনার মনিটাইজেশন ডিজেবল করে দেবে।

কপি-পেস্টঃ নিজ থেকে যতটুকু পারেন, ততটুকুই লিখুন, কপি-পেস্ট করা থেকে বিরত থাকুন। বিশেষ কোন কারণে, অন্যের পোস্ট থেকে আইডিয়া নিতে পারেন।

নিজের বন্ধুবান্ধবকে বিজ্ঞাপনে ক্লিক করতে বলাঃ অনেক নতুন ব্লগার ফেইসবুক বা যেকোন সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজের বন্ধুবান্ধবকে ভিডিও লিংক পাঠিয়ে ভিউ করতে বলেন এবং বিজ্ঞাপনে ক্লিক করতে বলেন, এই কাজ করা থেকে বিরত থাকুন।

নিষিদ্ধ কন্টেন্টঃ ব্লগে কিছু নিষিদ্ধ টপিক আছে যেমন হেটফুল কন্টেন্ট, হারম্ফুল কন্টেন্ট, হ্যারেসমেন্ট, ভায়োলেন্ট কন্টেন্ট, এডাল্ট কন্টেন্ট ইত্যাদি, এই সব বিষয় নিয়ে পোস্ট বা ভিডিও আপলোড করা থেকে বিরত থাকবেন কারণ, এই ধরনের কন্টেন্ট আপনার মনিটাইজেশন হারানোর কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে।

মিসলিডিং কন্টেন্ট ও ট্যাগঃ অনেকে পোস্ট লিখেন এক বিষয়ে আর টাইটেল দেন আরেক বিষয়ের। অনেকে পোস্টের সাথে মিল রেখে ট্যাগ ব্যবহার করেন না। আবার অনেকেই পোস্টের সাথে মিল রেখে ছবি ব্যবহার করেন না। এগুলোকে মিসলিডিং বলা হয়। এই কাজ থেকে বিরত থাকতে হবে, না হলে গুগল মিসলিডিং ডাটা হিসেবে মার্ক করে আপনার মনিটাইজেশন ডিজেবল করে দিতে পারে।

একাধিক একাউন্ট ব্যবহারঃ আপনি যদি নতুন হোন, তাহলে একের বেশি অ্যাডসেন্স একাউন্ট ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন। না হলে আপনার একটি একাউন্টের সমস্যার কারণে অন্য একাউন্টগুলো ব্যান হয়ে যেতে পারে। তাছাড়া গুগল যেহেতু আপনাকে ২০০ সাইটে কোড ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে, এখানে অধিক একাউন্ট কেন-ই বা প্রয়োজন?

নিচের পোস্টগুলো দেখতে পারেনঃ

গুগল অ্যাডসেন্স কি এবং কিভাবে কাজ করে?

কিভাবে এক মাসের মধ্যে গুগল এডসেন্স পেতে পারেন

Google Adsense আবেদন সফল হয়নি! কি করবেন?

ব্লগে ভিজিটর বাড়ানোর ২০টিরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ টিপস

অনলাইন আয়ের ৩ টি জনপ্রিয় মাধ্যম
যে কারণে আপনার গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট হারাতে পারেন
Item Reviewed: যে কারণে আপনার গুগল অ্যাডসেন্স একাউন্ট হারাতে পারেন 9 out of 10 based on 10 ratings. 9 user reviews.

Post a Comment

Dear readers, after reading the Content please ask for advice and to provide constructive feedback Please Write Relevant Comment with Polite Language.Your comments inspired me to continue blogging. Your opinion much more valuable to me. Thank you.

Powered by Blogger.